বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৫:১২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর :
বিএসএমএমইউ ৬০০ নার্স নিয়োগ দেবে করোনায় দেশে ৩২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,১৩১ আ.লীগ বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে: তথ্যমন্ত্রী সরকারের দুঃশাসনের সীমা ছাড়িয়ে গেছে: রিজভী রেমিটেন্সের ইতিবাচক ধারা অব্যাহত খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়াতে পরিবারের আবেদন চিরনিদ্রায় শায়িত রাহাত খান সিনহা হত্যা: পুলিশের মামলার তিন সাক্ষী চারদিনের রিমান্ডে এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে না ‘১লা সেপ্টেম্বর থেকে আগের ভাড়ায় চলবে গণপরিবহণ’ সিলেটে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫ পুতিনের মেয়ের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি করেছে রুশ ভ্যাকসিন ভারতে করোনা আক্রান্ত ছাড়াল ৩৪ লাখ পুলওয়ামায় লস্কর-ই-তৈয়বার তিন জঙ্গি নিহত ঘুর্ণিঝড় লরায় যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ জনে ‘পুতিন একটু চা খাও’ বিশ্বে করোনায় সুস্থ হয়েছেন এক কোটি ৭২ লাখের বেশি করোনায় সবচেয়ে বিপর্যয়ের মুখে যুক্তরাষ্ট্র ভারতে ৮৭ হাজারের বেশি স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত ইউরোপে আবারও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ
বিজ্ঞপ্তি :
চলছে পরীক্ষামুলক সংবাদ প্রচার

জজ মিয়া নাটকসহ ৭ বছরেই তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন হয় ৬ বার

রিপোর্টারের নাম / ২৬৫ জন দেখেছেন
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৫:১২ অপরাহ্ন

২১শে আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা মামলা নিয়ে শুরুতেই ছিল টালবাহানা। এরপর মামলা হলেও তদন্ত নিয়ে শুরু হয় ছলচাতুরি।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট। প্রশাসনিক সহায়তায় জঙ্গিরা বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালায়। অল্পের জন্য বেঁচে যান তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই হামলায় নিহত হন আওযামী লীগ নেত্রী সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভী রহমানসহ ২৪ জন। আহত হন তিন শতাধিক নেতাকর্মী।

ঘটনার পরদিন মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে মামলা করেন। শুরুতে এ মামলাটির তদন্ত করে থানা পুলিশ। পরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ হয়ে মামলার তদন্তের দায়িত্ব পান পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। যদিও আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল জলিল ও সাবের হোসেন চৌধুরী আরও দুটি মামলা করেছিলেন। পরবর্তীতে মামলাটি বিশেষ ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হয়।

এই মামলার সবচেয়ে আলোচিত অধ্যায় ছিলো জজ মিয়া নামের সাধারণ এক নিরাপরাধ ব্যক্তিকে দিয়ে স্বিকারোক্তি দেওয়া। বিনিময়ে সিআইডি তার পরিবারকে নিয়মিত অর্থ সাহায্য দিতো। বিএনপি সরকারের আমলে সাজানো নাটক গণমাধ্যমের কল্যানে জানাজানি হয়ে যায়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় এসে তাকে আসামির তালিকা থেকে বাদ দিয়ে অভিযোগপত্র জমা দেয় সিআইডি।

২০০৮ সালের ১১ জুন দেওয়া অভিযোগপত্রে বিএনপি নেতা আবদুস সালাম পিন্টু, তার ভাই হুজি নেতা মাওলানা তাজউদ্দিন ও হুজি নেতা মুফতি আব্দুল হান্নানসহ ২২ জনকে আসামি করা হয়। তখন জানা যায়, শেখ হাসিনাকে হত্যা করতেই হামলার ছক করা হয়েছিল। আর পাকিস্তান থেকে আনা হয়েছিল হামলায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেড।

এর পরের বছরই ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে মামলাটি অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেয় আদালত। এরপর মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পান সিআইডি কর্মকর্তা আবদুল কাহহার আখন্দ। দুই বছর তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ৩রা জুলাই, ৩০ জনকে আসামি করে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। এর ফলে এ মামলায় বিএনপি নেতা তারেক রহমানসহ মোট আসামির সংখ্যা হয় ৫২ জন। এরমধ্যে তিনজনের ফাঁসি কার্যকর হয় অন্য মামলায়।

সম্পূরক চার্জশিটে যে ৩০ জনকে আসামি করা হয় তাদের মধ্যে নতুন করে বিএনপি নেতা তারেক রহমান, তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, হারিছ চৌধুরীর নাম আসে। এর মধ্যে তারেক রহমানসহ ১৮ জন পলাতক।

আলোচিত এই হামলায় পৃথক তিনটি মামলা হয়। তবে, প্রথম সাত বছরেই তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন হয় ছয়বার। এরমধ্যে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে প্রথম তদন্ত হলেও তখন কোন প্রতিবেদন দাখিল হয়নি। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেও গ্রেনেডের উৎস ও মদদদাতাদের শনাক্ত করা হয়নি। তবে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর রাষ্ট্র পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত মামলার বর্ধিত তদন্তের আদেশ দেন।

১৩ দফা সময় বাড়িয়ে ২০১১ সালের ৩ জুলাই ,সম্পূরক অভিযোগপত্র জমা দেওয়ার মধ্য দিয়ে ভয়ানক এ হামলার তদন্ত শেষ হয়। এরপর ২০১২ সালের ২৮ মার্চ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান সহ ৫২ জন আসামির বিরুদ্ধে বিচার কাজ শুরু হয়।

দীর্ঘ সাক্ষগ্রহণ শেষে , ঘটনার ১৪ বছর এক মাস ২০ দিন পর চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় ঘোষণা হয় ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর। হামলার ঘটনায় বিচারিক আদালত সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও বিএনপি নেতা আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দেয়। একইসঙ্গে তারেক রহমানসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আর বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয় অপর ১১ আসামিকে।

এই রায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের সাজা অনুমোদন ও আপিলের আবেদন হাইকোর্টে পাঠানো হয় ২০১৮ সালের ২৭ নভেম্বর। আর গত ১৬ আগস্ট মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করে সুপ্রিম কোর্টে পাঠানো হয়েছে। হাইকোর্ট এখন মামলাটির শুনানির জন্য প্রস্তুত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সংক্রান্ত খবর